Header Border

চাঁদপুর, শনিবার, ২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ (বসন্তকাল)

মতলব দক্ষিণে স্বয়ং ভগবান জগন্নাথ দেবের উল্টো রথযাত্রা অনুষ্ঠিত

চাঁদপুর জেলার মতলব দক্ষিণে ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী জগন্নাথ মন্দিরে বিকাল আজ ৯ জুলাই বিকেল ৫টায় গুন্ডিচা মন্দির থেকে পূজার্ঘ ও পূর্ণ ভোগ গ্রহণের পর শত শত ভক্ত বৃন্দের উপস্থিতিতে স্বয়ং ভগবান শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের উল্টো রথযাত্রা উৎসব মুখোর পরিবেশে সম্পন্ন হয়েছে।

জানা যায় যে, আষাঢ় শুক্লাপক্ষ দশমী তিথির বিকেলে বা আষাঢ় মাসের মোম চন্দ্রের দশমী তিথির শুভালগ্নে ভগবান জগন্নাথ দেবের উল্টো রথযাত্রা পালিত হয়। এসময় মন্দির প্রাঙ্গণে দূরাগত অনেক ভক্তবৃন্দের সমাগম ঘটে। এসময় ভক্তবৃন্দরা স্বয়ং জগন্নাথ দেবের বিগ্রহ বা মূর্তি নিজ হাতে স্পর্শ করার সুযোগ পায়।

আষাঢ় মাসের সপ্তম দিনে শুরু হয় স্বয়ং ভগবান জগন্নাথ দেবের প্রত্যাবর্তনের প্রস্তুতি। উল্টো রথ, বহুদা যাত্রা বা উল্টো রথ নামেও পরিচিত, আট দিন পর গুন্ডিচা মন্দির থেকে পুরীতে জগন্নাথ রথযাত্রার রথের ফিরতি যাত্রা। এটি জগন্নাথ রথযাত্রার সমাপ্তি চিহ্নিত করে।

উল্টো রথযাত্রার তাৎপর্যঃ
আষাঢ় মাসের সপ্তম দিনে শুরু হয় ফিরতি যাত্রার প্রস্তুতি। গুন্ডিচা মন্দিরে সকালে পূজার পরে, দেবতাদের উদ্দেশ্যে মালা নিবেদন করা হয় এবং যাত্রাগামী রথ’কে সু-সজ্জিত ও পবিত্র করে মাটিতে স্থাপন করা হয়। ফিরতি যাত্রায় উদ্দেশ্যে সজ্জিত রথ’কে দক্ষিণমুখী করে রাখা হয়।

সুভদ্রার (দেবদালন) রথটি মাঝখানে, তার পরে পশ্চিমে বলভদ্রের (তালধ্বজা) রথ এবং সবশেষে পূর্বে জগন্নাথের (নন্দীঘোষ) রথ। মাঝখানে সুভদ্রা, ডানে জগন্নাথ এবং বামদিকে বলভদ্র ও সুদর্শন।
ফেরার তারিখের আগের দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রথটি চর মালা দিয়ে সু-সজ্জিত করা হয় এবং গর্ভগৃহে দেবতাদের সামনে রাখা হয়।

প্রত্যাবর্তন যাত্রা শুরু হয় আষাঢ় শুক্লপক্ষ দশমী তিথির বিকেলে বা আষাঢ় মাসের মোম চন্দ্রের দশমী তিথিতে।

রোজা হোম, সূর্যপূজা, দ্বারপাল পূজা, এবং সকালের খাবারের অর্ঘ্য হলো উল্লেখযোগ্য পূজাগুলি। যা স্বয়ং ভগবান জগন্নাথ দেব বাড়ি ফেরার আগে সম্পাদিত হয়।

এরপর কাঠের ফ্রেম ও সেনাপতি লাগিয়ে দেবতাদের যাত্রার জন্য প্রস্তুত করা হয়। ভৃত্য দেবতাদের প্রস্তুত করার সময় বুকের ড্রয়ার, কুশন এবং অন্যান্য জিনিস নিয়ে আসে। নর্তকীরা দেবতাদের উদ্দেশ্যে বলি হিসাবে প্রাচীন নৃত্য পরিবেশন করে, একটি আনন্দময় মুহুর্ত তৈরি করে। অভিনয়শিল্পীরা হনুমান এবং মহাকাব্য এবং পুরাণ থেকে অন্যান্য ব্যক্তিত্বের মতো রূপায়ন করেন। এরপর দেবতারা নিজ নিজ রথে উপবিষ্ট হন।

পুরোহিতরা মদন মোহন, রাম এবং কৃষ্ণের মূর্তিগুলি জগন্নাথ এবং বলভদ্রের রথে নিয়ে যান। বিকেলে শুরু হয় রথ টানার পর্ব

উল্টো রথযাত্রার সময় স্বয়ং ভগবান জগন্নাথ, বলভদ্র এবং সুভদ্রার রথগুলি মৌসিমা মন্দিরে থামানো হয়।

ভগবান জগন্নাথের মাসিকে উৎসর্গ করা মৌসিমা মন্দিরে দেবতাদের’কে পোদা পিঠা পরিবেশন করা হয়, যা ভাত, নারকেল, মসুর এবং গুড় সমন্বিত একটি অনন্য সুস্বাদু খাবার।

এর পরে, জগন্নাথের রথ গজপতির প্রাসাদের সামনে লক্ষীনারায়ণ ভেতা বা লক্ষ্মীর সমাবেশের জন্য থামে। তারপর রথ টানা হয় এবং তা চূড়ান্ত গন্তব্যে পৌঁছায়।

মতলব দক্ষিণ শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের মন্দির প্রাঙ্গণে রথ পরিচালানায় ছিলেন ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেব মন্দিরের নিয়মিত সেবাইত বাবু অজিত চক্রবর্তী, সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন শনি চক্রবর্তী, পন্ডিত সুদেব চন্দ্র আচার্য্য, রাজিব চক্রবর্তী, কাকন ভট্টাচার্য, বিপ্লব চক্রবর্তী প্রমুখ।

এসময় মন্দির প্রাঙ্গণে দূরাগত অনেক ভক্তবৃন্দ সহ স্থানীয় এলাকার সুধীজন ও ভক্তবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চাঁদপুর টেলিভিশন সর্বশেষ খবর পেতে গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি অনুসরণ করুন


আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন
গণঅধিকার পরিষদের কচুয়া উপজেলা শাখার ইফতার ও দোয়া
ছাত্র অধিকার পরিষদের কচুয়া উপজেলা শাখা নতুন কমিটি ঘোষণা
বিএনপি-জামাত জনগণকে কিছু দিতে পারেনি বরং কেড়ে নিয়েছে – শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি
আজ চাঁদপুর মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার উদ্বোধন
ফরিদগঞ্জে বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে সরকারি গাছ কর্তনের অভিযোগ
চাঁদপুর পৌর শহীদ জাবেদ উচ্চ বিদ্যালয় ‘কলেজে’ উন্নীত!

জেলা সংবাদ এর আরও খবর

সম্পাদক : মোঃ মেহেদী হাসান